ঈদ-উল- আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জুলফিকার হায়দার জোসেফ

0
12

বেল্লাল হোসেন বাবু,
নাটোর জেলা প্রতিনিধি :

পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে নাটোর বাসীকে ঈদ-উল-আযহার
শুভেচছা জানিয়েছে
এটিএন বাংলার নাটোর প্রতিনিধি ও
দৈনিক করতোয়া পত্রিকার নাটোর প্রতিনিধি জুলফিকার হায়দার জোসেফ।

তিনি বলেন, ঈদ- উল-আযহা মুসলিম জাতির জন্য আনন্দের দিন। তাই তিনি পবিত্র এই দিনে সবাইকে নিয়ে মিলেমিশে গরীব দুঃখী মানুষের সাথে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করার আহ্বান জানান।

তিনি আরো বলেন, প্রতিটি প্রানে ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে পড়ুক প্রতিটি মানব জেগে উঠুক ভাতৃত্বের বন্ধনে। শুধু ঈদের দিনই নয়, এই বন্ধন জাগ্রত হোক প্রতিটি দিন, আর তা শুরু হোক ঈদ দিয়ে । বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের কারনে এবার ঈদ করতে অনেকটাই কষ্টকর হবে।

তিনি আরও বলেন,

তিনি সমগ্র মুসলিম উম্মাহর প্রতি ঈদ উল আযহার আগামী অফুরন্ত শুভেচ্ছা ও আন্তরিক অভিনন্দন জানান।
তার পাশাপাশি আত্মশুদ্ধি ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য হাসিল করাই আমাদের কাম্য। পশু কোরবাণীর মাধ্যমে প্রত্যেকের মনে ত্যাগের মানসিকতা জাগ্রত হবে এবং পশুত্ব বিলীন হবে বলে আশা রাখছি। হিংসা বিদ্বেষ ও ধনী-গরীবের ভেদাভেদ ভুলে সবাই নিরাপদে ও সুস্থ্যতার সহিত ঈদ উদযাপন করবে বলে আমি দোয়া কামনা করছি। ঈদের পবিত্রতা ও ত্যাগের মহিমা ছড়িয়ে যাক প্রতিটি মানুষের প্রাণে। আসুন করোনা প্রতিরোধে অতিরিক্ত কেনাকাটা ও ঘুরাঘুরি পরিহার করে সকলে সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি এবং আল্লাহর কাছে বেশী বেশী দোয়া করার মাধ্যমে ঈদুল উল- আযহা উদযাপন করি’।

সাংবাদিকতা সহজ নয়, পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ও সম্মানজনক পেশা! তবে এটা সবার জন্য না। আমরা মানুষ শুধু চাওয়া পাওয়া নিয়ে হিসাব করি, সকল শ্রেণি পেশার মানুষেরই রয়েছে না পাওয়ার বেদনা। সাংবাদিকসহ সকল জনসাধারণের সচেতনতার অভাবে বাড়ছে বিভিন্ন জটিলতা। মানুষের অভিযোগের শেষ নেই, সকল পেশার মানুষেরই সমস্যা রয়েছে। সচেতন মহলের দাবি-জনসচেতনতার অভাবে অপরাধমুলক কর্মকান্ডও বাড়ছে। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ১৯৭১ সালে অনেক মা বোনের ইজ্জত দিতে হয়েছে, লাখ লাখ মানুষ শহীদ হয়েছেন। শহীদের রক্ষের বিনিময়ে লাল সবুজের পতাকা ও স্বাধীনতা পেয়েছি আমরা, কিন্তু বেঈমান ও কিছু দুষ্টুলোকের কারণে মানবতার কল্যাণে কাজ করা কঠিন হয়ে পড়েছে বলে অনেকেরই অভিমত।
দেশে কয়েক হাজার সংবাদ মাধ্যমের মধ্যে টেলিভিশন, জাতীয় পত্রিকা, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক ও অনলাইন পোর্টালসহ বিভিন্ন সংবাদপত্র রয়েছে, সেখানে লক্ষাধিক সংবাদ কর্মী এবং স্টাফ কাজ করেন। আইনজীবী, পুলিশ, সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধিসহ সকল পেশায় কিছু বেঈমান ও দুষ্টু প্রকৃতির লোক থাকে, তারা মানুষের সাথে প্রতারণা করার কারণে প্রকৃত ভালো মানুষের বদনাম হচ্ছে। এসব প্রকৃতির মানুষ কিছু অপরাধীকে আটক কার হলেও আইনের ফাঁকফুকোর দিয়ে বেঁচে যাচ্ছে তারা, যারা দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করছেন, একটু চিন্তা করে দেখেন যে, তারাই বেশি ক্ষয়ক্ষতির শিকার হচ্ছেন।

সাংবাদিক ভাই বন্ধুগণ আপনাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। আমাদের পরিবার, সমাজ, দেশ ও জাতির ভালো দিকগুলো চিন্তা করে সবাইকে সাবধান ও সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। অপরাধীর পক্ষ না নিয়ে সময়মত অপরাধীদের ধরে দিন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে, এতে সবার জন্য মঙ্গল। ভুলের ক্ষমা হয় কিন্তু অপরাধীর ক্ষমা নয়।

তবুও আপনারা সবাই সামাজিক দুরুত্ব বজায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে রেখে আপনারা আপনাদের পরিবার পরিজনদের পাশে দাড়িয়ে ঈদ-উল ঈদের আনন্দ দেওয়ার চেষ্টা করবেন।

ঈদ মানেই আনন্দ,ঈদ মানেই খুশি, এই ঈদে সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে, এই ঈদের আনন্দ মধুময় করতে একে অপরের প্রতি সহনশীলতা সম্প্রীতি গড়ে তুলেন।

ঈদ সবার জন্য নিয়ে আসুক শান্তিময় ভালোবাসা। সবাইকে জানাই ঈদ মোবারক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here