নাটোরের বড়াইগ্রামে মহিলা ব্র্যাক কর্মিকে বস এর সাথে শারিরীক সম্পর্কে রাজি না হওয়ায় চাকরি থেকে বরখাস্ত,লম্পট আকছেদ আলীর বিচার দাবি

0
28

 মোঃ মুনুজুরুল হক সুজন,নাটোর(বড়াইগ্রাম)প্রতিনিধিঃ

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলাধীন কৃষ্ণপুর গ্রামের মহিলা ব্যাক কর্মিকে বস এর সাথে শারিরীক সম্পর্কে রাজি না হওয়ায় চাকরি থেকে বরখাস্ত,লম্পট আকছেদ আলীর বিচার দাবি করেন ভুক্তভোগী মোছাঃ মরিয়ম খাতুন(৪০)।

তিনি আমাদের প্রতিনিধিকে বলেন যে,আমি একজন স্বামী পরিত্যাক্তা তৃণমূল পযায়ের দরিদ্র পরিবারের অসহায় গৃহহীন জয়িতা নারী।আমার একটি কন্যা সন্তান আছে ।আমি ব্র্যাক সামাজিক ক্ষমতায়ন কম সূচিতে ০১-০৬-২০১৪ সালে নাটোরের সিংড়া বাহিমাল অফিসে যোগদান করি।একই বছরে বদলি হয়ে বাগাতিপাড়া ব্র্যাক অফিসে আসি। ২০১৫ সালে ২৭ মে নাটোর জেলা ব্যাবস্থাপক মোঃ আকছেদ আলী(৫০)আমার কাজ দেখতে অফিস রুমে ঢুকে পেছন থেকে আমার র্স্পকাতর জায়গায় হাত বুলিয়ে বলেন আমার মন খুশি করলে চাকরি থাকবে নইলে চাকরি থাকবে না।আমি তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় কিছু দিন পর ২৫০ টাকার মিথ্যা অপবাদ দেন।িএছাড়াও আমাকে দুইটি নোটিশ দেন আমি তার জবাবওদি।

কিন্তু তিনি আমাকে দূবল কমি করে ব্র্যাক প্রধান কায্যালয়ে আমার বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করেন। আমি সকল কাজ সফলতার সাথে করার পরও আমাকে ২৮-০৮-২০১৬ তারিখে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেন।আমি ব্র্যাক ন্যায়পাল মহাদয়ের কাছে চাকরি পুনবহালের জন্য আবেদন করি।কিন্তু বিচারে আমার চাকরির বয়স অল্প হওয়ার জন্যও দূবল লিষ্টে যাওয়ার বয়স হয় নাই বলে আমার পক্ষে রায় দেন ।এটা ষড়যন্ত্র মুলক দেওয়া হয়েছে ও মরিয়ম একজন দক্ষ কমি ২৫০ টাকা চুরির যে অপবাদ দেওয়া হয়েছে তার সম্পুন ভিত্তিহীন প্রমানিত হয়েছে।এবং তাকে পুনরায় চাকরিতে বহালের জন্য নিদেশ দেন।আজ পযন্ত ও আমাকে চাকরিতে পুনবাহাল করা হয়নি।চাকরি হারিয়ে না খেয়ে পাগলের মত ঘুরছে মানুষের দ্বারে দ্বারে বিচারের আশায়। তার একটি ছোট্র ৫ বছরের মেয়ে রয়েছে।চাকরি হারিয়ে পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে জীবন যাপন করছেন তিনি।চাকরিতে পূনবহাল,বকেয়া বেতন,বোনাস,বাৎসরিক ছুটির টাকা,ও লম্পট আকছেদ আলীর বিচার দাবি করেন তিনি। এছাড়াও তিনি গনমাধ্যামের সাথে সম্পৃত আছেন তাদের প্রতি বিনীত অনুরোধ জানান তার বিষয়টি যেন সবাই ঢালওয়াভাবে প্রচার করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here