ময়মনসিংহের ত্রিশালে রান্নার তেল নিয়ে ঝগড়া, স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন।

0
18

তাপস কর,ময়মনসিংহ প্রতিনিধি। ময়মনসিংহের ত্রিশালে রান্নার তেল নিয়ে ঝগড়ায় স্বামীর হাতে খুন হয়েছে স্ত্রী। রান্না করার তেল শেষ হওয়ায় স্বামীকে তেল আনতে বললে স্বামী ক্ষিপ্ত হয়ে মারধর করে স্ত্রীকে। এঘটনায় গৃহবধূ উকিল শ্বশুরের কাছে বিচার দিলে শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীকে আবারো ব্যাপক মারধর করে। এসময় ধাক্কা দিয়ে ঘরের পাটাতনে ফেলে দিলে মাথা ফেটে যায় স্ত্রীর। পরে স্থানীয়রা ত্রিশাল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্ষে চিকিৎসা দিয়ে বোনের বাড়িতে নিয়ে গেলে সেখানে মৃত্যু হয় তাছলিমা আক্তার নামের এক গৃহবধূর। ঘটনাটি ঘটে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার অলহরী খারহর গ্রামে। পুলিশ এঘটনায় নিহতের স্বামী আব্দুর রাজ্জাককে আটক করেছে। নিহতের ভাই বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছে। জানাযায়, উপজেলা অলহরি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের সাথে ধোবাউরা উপজেলার পশ্চিম নোয়াপাড়া গ্রামের তাছলিমা আক্তারের সাথে পাঁচ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই বেকার স্বামী বিভিন্ন সময় টাকা জন্যে স্ত্রীর ওপর অত্যাচার করত। মঙ্গলবার দুপুরে তরকারি রান্না করার তেল শেষ হয়ে যাওয়ায় স্বামীকে তেল আনতে বলে স্ত্রী তাসলিমা। এতে স্বামী আব্দুর রাজ্জাক উত্তেজিত হয়ে তাছলিমাকে মারধর করে। এসময় স্ত্রী পাশ্ববর্তী বাড়িতে তার উকিল শ্বশুর আমিনুল ফরাজির কাছে বিচার দিতে গেলে স্বামী টের পেয়ে ওই বাড়িতে গিয়েও তাছলিমাকে ব্যাপক মারধর করে। এসময় তাছলিমাকে ঘরের পাটাতনে ফেলে মাথায় আঘাত করলে গুরুতর আহত হয়। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ত্রিশাল থানা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা দিয়ে তাছলিমার ছোট সমেলা তার বোনকে নিয়ে স্বামীর বাড়িতে গেলে স্বামী আব্দুর রাজ্জাক ঘরে তুলতে অস্বীকৃতি জানায়। এসময় বোন সমেলা উপায় না পেয়ে তার নিজ বাড়ি ফুলবাড়িয়া উপজেলার রাধাকানাই নিয়ে যায়। গতকাল রাত ১০টার দিকে গৃহবধূ তাছলিমার মৃত্যু হয়। ফুলবাড়িয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। ত্রিশাল ফুলবাড়িয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার স্বাগতা ভট্টাচার্য জানান, ঘটনার জানার পরপরই ফুলবাড়িয়া থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মমেকে পাঠানো হয়েছে। নিহতের ভাই বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় অভিযোগ দিলে ত্রিশাল থানা পুলিশ অভিযোক্ত একজনকে আটক করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here