সাবেক ইউএনও সুমি আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা

0
31

 সিটন চৌধুরী, সদর উপজেলা প্রতিনিধি হবিগঞ্জ :

.সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের আদেশ অমান্য করে জরিমানা করায় শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমী আক্তার ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মো. সাদ্দাম হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার বনজ কুমার হালদার। ১ অক্টোবর হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলাটি দায়ের করেন তিনি। জানা যায়, চলতি বছরের ৩১ মার্চ শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার পুরান বাজারে একটি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন তৎকালীন নির্বাহী কর্মকর্তা সুমি আক্তার। এ সময় তিনি চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার বনজ কুমার হালদারকে প্রেসক্রিপশনে ‘ডাক্তার’ লেখার অভিযোগে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। মামলার অভিযোগে প্রকাশ, কর্মস্থল চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হলেও বনজ কুমার হালদার স্ব-পরিবারে বসবাস করেন শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার পুরান বাজারে। ওই দিন শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সাদ্দাম হোসেনের প্ররোচনায় তার বাসায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমি আক্তার। এ সময় তিনি বনজ কুমার হালদারকে প্রেসক্রিপশনে ‘ডাক্তার’ লেখার অভিযোগে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। যা ন্যায় সঙ্গত নয় বরং আইন বহির্ভূত। মামলার বাদী উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার বনজ কুমার হালদার বলেন, ‘করোনার কারণে কোর্ট বন্ধ ছিল।

যে কারণে মামলাটি দায়ের করতে বিলম্ব হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিডিএম) এর তৎকালীন সভাপতি শামছুল হুদা (বর) ২০১৩ সালে হাইকোর্টে একটি রীট পিটিশন দায়ের করেন। যার নং- ২৭৩০। ওই রীটের প্রেক্ষিতে বিচারপতি নাঈমা খন্দকার ও বিচারপতি জাফর আহমদ স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়, ‘রীট নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বি.এম.এন.ডি.সি কর্তৃক রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত ডি.এম.এফ ডিগ্রীধারীদের গ্রেফতার করা বা ভয় দেখানো যাবেনা। এমনকি তাহাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলাও করা যাবেনা।’ তিনি অভিযোগ করে আরো বলেন, ‘রীটটি এখনো নিষ্পত্তি হয়নি। সুতরাং হাইকোর্টের দেয়া আদেশ অমান্য করে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাদ্দাম হোসেনের প্ররোচনায় আমাকে অন্যায় ভাবে জরিমানা করা হয়েছে। এনিয়ে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসারদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। জানতে চাইলে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মো. সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘বনজ কুমার হালদারকে আমি ছিনিনা। আমি ভ্রাম্যমান আদালতকে সহযোগীতা করেছি মাত্র।’ শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার তৎকালীন নির্বাহী কর্মকর্তা সুমি আক্তার বর্তমানে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায় কর্মরত আছেন। তিনি বলেন, ‘আমি কোন নোটিশ পাইনি। মামলা হয়েছে কিনা আমি জানি না। নোটিশ পেলে বিস্তারিত বলতে পারব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here