সাভারে চুরি করতে এসে শিশু হত্যা, সন্দেহজনক ২ জনকে আটক করে পুলিশ

0
31

উজ্জ্বল হোসাইনঃ নিজস্ব প্রতিবেদক

সাভার উপজেলাধীন আশুলিয়ায় চুরি করতে এসে তোফাজ্জল হোসেন সাজ্জাদ (৯) নামের এক শিশুকে হত্যার পর কম্বলে মুড়িয়ে টয়লেটের সানসেডে রেখে বাসা থেকে স্বর্ণসহ নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ।

২২ এপ্রিল রাত সাড়ে ৯টার দিকে আশুলিয়ার বাইপাইল নতুন পাড়া এলাকার আব্দুল মান্নানের মালিকানাধীন ৬ তলা ভবনের ৫ম তলার একটি কক্ষের টয়লেট থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহত সাজ্জাদ ভোলা জেলার সদর থানার চন্দ্রাবাদ গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে। সে স্থানীয় আল আমিন মাদ্রাসায় পড়াশোনা করতো বলে জানা গেছে। সে পোশাক শ্রমিক বাবা-মায়ের সাথে আশুলিয়ার বাইপাইল নতুন পাড়া এলাকার সেই বাড়িতে থাকতো। আটক নাজমুল রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার কোশবন্য পুর গ্রামে অপরজনের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। স্থানীয়রা জানান, সাজ্জাদের মা খাদিজা বেগম পোশাক কারাখানায় কাজ করেন সেই সুবাদে তার ছেলে বাসায় থাকে। আজ ছুটির পরে বাসায় ফিরে ছেলেকে দেখতে না পেয়ে অনেক খুজাখুজির করেন তিনি। পরে শেষমেশ ওয়াশরুমের উপরে ছানসেডে কম্বলে পেঁচানো মরদেহ দেখতে পান সে।

এছাড়া ঘরের টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার চুরি হয়ে গেছে। পরে সে কান্নায় ঢুলে পরেন। এসময় পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। নিহতের মা খাদিজা বেগম অভিযোগ করে বলেন, গতকাল পাশের বাসার নাজমুল আমার কাছে ১ হাজার টাকা ধার চেয়েছিলো। আমি মানা করেছি বলে সে আমার ছেলেকে খুন করেছে। পরে বাসা থেকে ১৪ আনা সোনা ও ৫ হাজার টাকা নিয়েছে। আমি আমার ছেলেকে হত্যার বিচার চাই। এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) আব্দুর রাশিদ বলেন, শিশুটিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তারপর টয়লেটের সানসেডের উপর রাখা হয়েছে। আমারা প্রাথমিকভাবে জিঞ্জাসাবাদের জন্য পাশের বাসার দুইজকে আটক করেছি। হত্যার কারণ এখনো পরিষ্কার না। তবে সেই বাসাটিতে চুরিও হয়েছে। নিহত শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে থানা নিয়ে আসা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here