অপরাধ নিয়ন্ত্রণে বাইসাইকেলে টহল দিবে ময়মনসিংহ-পুলিশ।

0
8

তাপস কর,ময়মনসিংহ প্রতিনিধি।

অপরাধ নিয়ন্ত্রণে এবার বাইসাইকেলে টহল দিবে ময়মনসিংহ পুলিশ। ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের উদ্যোগে বিট পুলিশিংয়ে বাইসাইকেল টহল কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি ব্যারিস্টার হারুন অর রশিদ আনুষ্ঠানিকভাবে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। ময়মনসিংহকে অপরাধমুক্ত করনে দায়িত্বশীল ও মানবিক পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান নতুন করে এই উদ্যোগ নিয়েছেন। অপরাধ দমন, নিয়ন্ত্রণ এবং অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে নগরবাসীকে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাচল, নিরাপদে গন্তব্যে পৌছতে এবং রাতযাপনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামানের বাইসাইকেলে টহল ডিউটির এ উদ্যোগে স্বাগত জানিয়ে ডিআইজি ব্যারিস্টার হারুন অর রশিদ বলেন, নগরজুড়ে বাইসাইকেলে পুলিশি টহল ব্যবস্থা নতুন করে ময়মনসিংহে শুরু করা হলেও এটি নতুন নয়। বৃটিশ সময়ে পুলিশ বাইসাইকেলে চড়ে এলাকার অপরাধ প্রবনতারোধে সমগ্র এলাকায় টহল দিত। বিশ্বের অনেক উন্নত দেশেও এই কার্যক্রম চালু আছে। নগরীর অলিগলিতে যেখানে বড় বড় যানবাহন নিয়ে চলাচল করা সম্ভব নয়, সেখানের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বাইসাইকেল অনেক গকি ফিরিয়ে আনবে। অপরাধ প্রবনতা কমে আসবে। অপরাধীদের মাঝে আতংক সৃষ্টি হবে। জনগনের মাঝে পুলিশের ভাবমূর্তি আরো উজ্জ্বল হবে। তিনি আরো বলেন, আমরা মাদককে জিরোট্রলারেন্স নীতি হিসাবে কাজ করে অনেকটা সফল হয়েছি। চুরি, ছিনতাইরোধেও সফলতা ফিরে এসেছে। কিশোর অপরাধরোধে বাইসাইকেল টহল অবশ্যই সফল হবে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন মাধ্যমে খবর রয়েছে নগরীর আনাচে কানাচে এক শ্রেনীর চোর, ছিনতাইকারী, বখাটেসহ কিশোর অপরাধীরা নগরের বিভিন্ন এলাকায় চুরি, ছিনতাই, রাস্তারোধ করে মোবাইল, টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিচ্ছে। অনেকেেত্র পথচারীদের সব লুটে নিচ্ছে। আবার একাধিকস্থানে ইজিবাইকের চালককে হত্যা করে বাইক ছিনিয়ে নিচ্ছে। পুলিশ সুপার আরো বলেন, বিভিন্ন মাধ্যমে এ ধরনের খবর পেয়ে অলিতে-গলিতে লুকিয়ে থাকা এবং ঘাপটি মেরে উৎপেতে অপরাধী ও কিশোর অপরাধীদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে নিয়মিত পুলিশী টহল ডিউটির বাইরে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের আওতায় রেঞ্জ ডিআইজির সহযোগীতায় বাইসাইকেলে টহল ডিউটির পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। বাইসাইকেলে পুলিশি টহল চলমান থাকলে নগরবাসির চাওয়া পুরন হবে।

ময়মনসিংহ একটি নিরাপদ, বাসযোগ্য নগর হিসাবে পরিচিত হয়ে উঠবে। মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারবে। এ সময় অতিরিক্ত রেঞ্জ ডিআইজি ডঃ আক্কাস উদ্দিন ভুইয়া, রেঞ্জ অফিসের পুলিশ সুপার সৈয়দ হারুন অর রশিদ, ময়মনসিংহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফজলে রাব্বি, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু রায়হান, হাফিজুল ইসলাম, মোঃ আলাউদ্দিন, কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার, ডিবির ওসি শাহ কামাল আকন্দ, ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (প্রশাসন) সৈয়দ মাহবুবুর রহমান সহ অন্যান্য পুলিশ কমকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্ধ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here