বুকভরা কষ্ট নিয়ে বিদায় নিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ- জাতীয় মানবাধিকার সমিতি’র শোক

0
8
হাকিকুল ইসলাম খোকন ,সিনিয়র প্রতিনিধি:
সবাইকে কাঁদিয়ে, বুকভরা কষ্ট নিয়ে চিরদিনের জন্য বিদায় নিলেন গাঙচিল পরিবারের অভিভাবক ও চেয়ারম্যান, অবঃ সরকারী কর্মকর্তা এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ। গত ২ এপ্রিল গাঙচিল এর প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ খান আখতার এর ফেইজবুক থেকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন বাপসনিউজকে।
তাঁর মৃত্যুর খবরে হৃদয়টি মুহুর্তেই কেদে উঠলো। অনেক স্মৃতি ছিল এই প্রিয় মানুষটির সাথে। তাঁর হাত ধরেই গাঙচিল বরিশাল বিভাগীয় সদস্য সচিব নির্বাচিত হয়েছিলেন মনদুর হোসেন ঈসা ।তিনি তার লেখা অনেক বই তাকে উপহার দিয়েছিলেন। ২০২০ সালে সরকার কর্তৃক এই মহান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও লেখককে স্বাধীনতা পুরষ্কারে ঘোষনা করা হয়। কিছু ব্যক্তিদের অনাকাঙ্খিত সমালোচনায় তাঁর পুরষ্কার বাতিল ঘোষনা করা হয়। এই দুঃখ, কষ্ট তাঁর ও গোটা জাতির। সেই কষ্ট হয়ত বেশিদিন সহ্য করতে হয়নি। তাই তো তিনি চলে গেলেন না ফেরার দেশে। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি’র চেয়ারম্যান মঞ্জুর হোসেন ঈসা, মহাসচিব এ্যাড. সাইফুল ইসলাম সেকুল ও সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন আল আমিন। নেতৃবৃন্দ শোক বিবৃতিতে বলেন, একজন মহান বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মান জানাতে না পারলেও অসম্মান জানোনোর অধিকার কারও নেই। রাষ্ট্র কর্তৃক তাঁর সম্মান ও মর্যাদা যেভাবে কেড়ে নেয়া হয়েছে তাতে জাতি হিসেবে আমরা লজ্জিত। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তিতে অনেক অর্জনের মাঝেও এই লজ্জা আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছে।
আশা করবো রাষ্ট্র এ বিষয় নতুন চিন্তা করবে। আমরা তাঁর বেদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করি। তিনি তার লিখনীতেই আজীবন বেচে থাকবেন। আল্লাহ তাকে জান্নাত দান করুক। এক নজরে বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদঃ এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ বাংলাদেশী সরকারি কর্মকর্তা, লেখক ও মুক্তিযোদ্ধা। সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০২০ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত তালিকায় বাংলাদেশ সরকার তাকে স্বাধীনতা পুরস্কার- এর জন্য মনোনিত করে। পরে নানা আলোচনা ও সমালোচনার মুখে তার পদকটি সংশোধিত বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বাদ দেয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ ১৫ জানুয়ারি ১৯৬০ সালে নড়াইলের লোহাগড়ার কুমড়ী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ ৮ নম্বর সেক্টরের অধীনে মুক্তিযোদ্ধ। বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা রইজ উদ্দিন ১৫ জানুয়ারি ২০২০ সালে খুলনা বিভাগীয় উপভূমি সংস্কার কমিশনারের পদে থেকে অবসরে গেছেন। তিনি গাঙচিল সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদের সভাপতি। এস এম রইজ উদ্দিন আহম্মদ কবিতা, ভ্রমণ কাহিনী, প্রবন্ধ ও উপন্যাসের পাশাপাশি নড়াইল, পিরোজপুর, পাবনাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের ইতিহাস নিয়ে বই লেখেছেন। তার উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে: কেমন করে স্বাধীন হলাম (কবিতা), পুষ্পিতারণ্যে বিথী (উপন্যাস), পরলোকে মর্তের চিঠি (পত্রোপন্যাস), রবীন্দ্রজীবনে ভবতারিনীর প্রভাব ও অন্যান্য প্রসঙ্গ (প্রবন্ধ), দেখে এলাম নেদারল্যান্ড: ভূমি প্রসঙ্গ (ভ্রমণ কাহিনী), আগস্ট ট্রাজেডি ও তারপর! (ইতিহাস)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here