মাঠ প্রশাসনের কর্মচারীদের সপ্তম দিনের কর্মসূচি ।

0
11

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি অাব্দুল কাইয়ূম।:

বাংলাদেশ কালেক্টরেট সহকারী সমিতি (বাকাসস) কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সচিবালয়ের ন্যায় মাঠ প্রশাসনে কর্মরত ১৩-১৬ গ্রেডের কর্মচারীদের পদ পদবী ও বেতন গ্রেড উন্নীতকরণের দাবিতে সপ্তন দিনের কর্মবিরতি ও অবস্থান কর্মসূচি চলছে। বাংলাদেশ কালেক্টরেট সহকারী সমিতির (বাকাসস) এর কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সারাদেশের ন্যায় এ জেলায়ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর কার্যালয়ের কর্মরত কর্মচারীগণ এই কর্মসূচি পালন করছেন। সকাল ৯টা হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে স্ব স্ব অফিস প্রাঙ্গণে অবস্থান নেয় তারা। বিকাল ৫টা পর্যন্ত কোন ধরনের কাজে অংশ নিচ্ছেন না। অনেক সেবা প্রত্যাশীরা তাদের কাঙ্খিত সেবা না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। ফলে জেলা ও উপজেলা মাঠ প্রশাসনে কার্যক্রমে স্থবিরতা দেখা দেয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সুনামগঞ্জে মাঠ প্রশাসনের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর কার্যালয়ে ১৩-১৬ গ্রেডের প্রায় ২শতাধিক কর্মচারী রয়েছেন।

বাকাসস কর্তৃক দাবীকৃত পদসমূহ হচ্ছে অফিস সুপার/সিএকামইউডিএ/ট্রেজারি হিসাবরক্ষক/উচ্চমান সহকারী পদ হতে প্রশাসনিক কর্মকর্তা; স্টেনো গ্রাফার হতে ব্যক্তিগত কর্মকর্তা; স্টেনো টাইপিস্ট হতে সহকারী ব্যক্তিগত কর্মকর্তা; অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক/ পরিসংখ্যান সহকারী/রেকর্ড ক্লার্ক/সার্টিফিকেট সহকারী/একাউন্টেন্ট ক্লার্ক/টাইপিস্ট কপিস্ট হতে সহকারী প্রশাসনিক কর্মকর্তা। একই যোগ্যতা নিয়ে সচিবালয়ে অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক হিসেবে চাকুরীতে যোগদান করেন মাত্র ৫বছরের ব্যবধানে তারা প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে থাকে এবং ধারাবাহিকভাবে সহকারী সচিব (নন-ক্যাডার); সিনিয়র সহকারী সচিব (নন-ক্যাডার) এবং উপ-সচিব (নন-ক্যাডার) হিসেবে পদোন্নতি প্রাপ্ত হয়ে থাকে। বাকাসস সুনামগঞ্জ শাখার সভাপতি আতাউর রহমান জানান যে, এ জেলার শাল্লা উপজেলা ভূমি অফিস কর্মরত অফিস সহকারী হরেন্দ্র চন্দ্র দাস দীর্ঘ ৩৩ বছর চাকুরী করে পদোন্নতি না পেয়ে মৃত্যুবরণ করেন। তাছাড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অফিস সহকারী সত্যজিত চৌধুরী, মো: আতিকুর রহমান, বিধান চন্দ্র দাস, আজিজুর রহমান, স্বীকৃতি চক্রবর্তী, আব্দুল্লাহ মাছুম, মো: জাহাঙ্গীর আলমসহ অনেক কর্মচারীগণ দীর্ঘদিন একই পদে চাকুরী করে পদোন্নতি না পেয়ে স্বেচ্ছায় অবসরগ্রহণ করেছেন। ফলে নবীন কর্মচারীগণ কাজ কর্মে কর্মস্পৃহা হারিয়ে ফেলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here