মিঠাপুকুরের অভিরামপুরে চিকিৎসার ব্যবস্থা না থাকায় মৃত্যুর দিন গুনছেন অসুস্থ ফেলানী

0
11

 নিজস্ব প্রতিবেদক

দুই দিন পরেই ঈদ,সবাই ব্যস্ত ঈদের আয়োজন নিয়ে।আর, এদিকে সরকার ঈদ উপলক্ষে অসহায় মানুষের জন্য ঈদের উপহার দিচ্ছে।এমনকি লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষদের জন্য ঈদের উপহার হিসেবে কিছু অনুদান প্রদান করছে।আর,এই অনুদান সঠিক মানুষ পাচ্ছে কিনা এমন প্রশ্ন সবার মুখে।এমনি, ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন, রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার ৭নং লতিবপুর ইউনিয়নের একজন বাসিন্দা মোছাঃ ফেলানী বেগম (৮৫)।

তিনি জানান,আমি আজ দীর্ঘদিন ধরে অনেক অসুস্থ আর আমার স্বামী মোঃ আকাব্বর (৯০)তিনিও দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ও অসহায় জীবন যাপন করছি। কিন্তু, কোনো চেয়ারম্যান মেম্বার আমার খোঁজ নিলো না। শুধু, ভোট এলেই নানান রকম কথার ফুলঝুড়ি ছোটান তারা।আর, ওদের কিছু অনুদান আসলে সেটা পায় তাদের সাথে থাকা আমাদের গ্রামের মাতব্বরা।এই, মাতব্বরদের জন্য,এই এলাকায় অসহায় লোকজনরা কোনো সহযোগিতা পায় না।এমনটাই জানিয়েছিলেন অসুস্থ ফেলানী। পরবর্তীতে তার ছোট ছেলে মোঃ রিফুল মিয়ার (৩০) সাথে কথা বললে তিনি জানান।

আমার,মা আজ দীর্ঘদিন ধরে অনেক অসুস্থ হয়ে পড়ে আছে।আমরা, অনেক চেষ্টা করেছি চিকিৎসা করে ভালো করার জন্য। কিন্তু,আমরাও তো অসহায় মানুষ। চিকিৎসা করাতে গিয়ে আমরা অনেক কষ্টে আছি।ঠিকমতো খেতে পারিনা, মা’কে আর কিভাবে চিকিৎসা করাবো।আর, এখন যা অবস্থা, এখন তো কোনো কাজকর্ম নেই।তাই, একমাত্র আল্লাহ তায়ালার উপর ভরসা করে আছি।কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা পান কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি জানান।

আমাদের তো দূরে থাক, এলাকায় থাকা কিছু অসৎ মাতব্বরদের জন্য আমাদের এই গ্রামের আসল অসহায় লোকজন কিছু পায় না।সেইসব সুবিধা পায় তাদের নিজস্ব লোকজন। উল্লেখ্য, সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,মোছাঃ ফেলানী বেগম (৮৫) দীর্ঘদিন যাবত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে একটা ছোট্ট ভাঙ্গা ঘরে জীবন যাপন করছে। তাছাড়াও,তার পড়নে একটা ছেঁড়া কাপড় পড়ে আছে। তাদের, ঠিক মতো চুলোয় আগুন জ্বলে না। বেশিরভাগ সময় তারা না খেয়ে দিন কাটাচ্ছেন। তার,এই চিকিৎসার জন্য দেশবাসী ও এলাকার জনপ্রতিনিধিদের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন। যোগাযোগ: ফোন:01792792014… মোস্তাকিম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here