ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে শুভসংঘের অনলাইন কবিতা প্রতিযোগিতা।

0
14

তাপস কর,ময়মনসিংহ প্রতিনিধি।
বিস্তারিতঃ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে শুভসংঘের অনলাইন কবিতা প্রতিযোগিতা চলছে।
গত পনেরদিন ধরে অনলাইনে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে করোনায় সকল কবি সাহিত্যক ছাড়াও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে কবিতা আহ্বান করে, উপজেলা শাখা শুভসংঘ। এতে ৩৭ জন কবি তাঁদের কবিতা শুভসংঘের নির্দিষ্ট পেজে আপলোড করেন। এদর মধ্যে ৬ জনকে পুরস্কার দেয় শুভ সংঘ। আজ মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদ হল রুমে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়িদের পুরস্কৃত করা হয়।
স্থানীয় সুত্র জানায়, করোনার এই ক্রান্তিলগ্নে কালের কণ্ঠের শুভসংঘ ঈশ্বরগঞ্জ শাখা অনলাইনে করোনার বিষয় নিয়ে কবিতা লেখা আহ্বান করে। পরে ফেসবুকে সর্বোচ্চ লাইক, কমেন্টসের মাধ্যমে তিনজন এবং তিন বিচারক তিনজন প্রতিযোগিকে নির্বাচিত করেন। এতে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন ফয়সার আহম্মেদ, যৌথভাকেব দ্বিতীয় স্থান অধিকারী হাসান আবু নাইম, রাজেশ চক্রবর্তী পার্থ। তৃতীয় স্থানে যথাক্রমে আব্দুল্লাহ আল মামুন, আজিজুল হাই সোহাগ, জহির আহম্মেদ, আব্দুল আউয়াল ও এসএন হুদা। চতুর্থ স্থানে এস এইচ জুয়েল। পঞ্চম স্থান নুরজাহান বেগম ও ষষ্ঠ স্থান শেখ মাহমুদ নানক।
ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা কবি ও লেখক সানোয়ার রাসেল, বাংলাদেশের প্রখ্যাত কবি ঈশ্বরগঞ্জ সরকারি ডিগ্রি কলেজের অধ্যাপক কবি সোহরাব পাশা ও কবি ও লেখক আলম মাহবুব বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।
পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে সঞ্চালানায় ছিলেন আনোয়ারুল বারী সুমন ও জান্নাতুন নাহার নূপুর। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, কবি আধ্যাপক সোহরাব পাশা, কবি ও লেখক আলম মাহবুব, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের উপদেষ্টা শিক্ষক হাসিম উদ্দিন, সভাপতি আহসানুল হক দিদার, প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান,কালের কণ্ঠের আঞ্চলিক প্রতিনিধি আলম ফরাজী প্রমুখ।
আলোচনা সভায় ইউএনও জাকির হোসেন বলেন, গত প্রায় পাঁচ মাস ধরে সকল মানুষই এক রকম ঘরবন্দি রয়েছেন। তাঁদেরকে আক্রান্তের হাত থেকে রক্ষা করতেই ঘরে রাখতে প্রশাসনসহ সকলেই জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ অবস্থায় এক ধরনের ক্লান্তি এসেছে সকলের মাঝে। এমনি একটা অবস্থায় শুভসংঘ অনলাইনে কবিতা আহ্বান করেছে। যার মাধ্যমে ক্লান্তি দূর ও সুপ্ত প্রতিভা বিকাশ করার সুযোগ রয়েছে।
অনুষ্ঠান শেষে উপস্থিত সকলের মাঝেই মাস্ক ও বিভিন্ন প্রজাতির গাছ তুলে দেন ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here